ইউজার লগইন

বিরাজনীতিকরণ

স্পেনে গত ১ বছর ধরেই গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় নির্বাচিত কোনো সরকার নেই। এক বছরের ভেতরে দুটো নির্বাচন হলেও কোনো দল একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়ে সরকার গঠন করতে ব্যর্থ, শিথিল শর্তে কিংবা দেশ ও জাতির বৃহত্ত্বর স্বার্থে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা কোনো ধরণের জোট গঠন করতে ব্যর্থ হয়েছে। সাধারণ মানুষেরা এই সরকারবিহিন রাষ্ট্রে বেশ খুশী। একদল দুর্নীতিগ্রস্ত, স্বার্থপর সংঘবদ্ধ অপরাধী চক্র- রাজনৈতিক দল এবং নেতাদের সম্পর্কে তাদের সাধারণ মূল্যায়ন এমনটাই। প্রতিটি রাজনৈতিক সরকার কোনো না কোনো পর্যায়ে দুর্নীতিকে প্রশ্রয় দিয়েছে এবং ব্যক্তিগত উপঢৌকন গ্রহন করেছে, এদের কাউকেই বিশ্বাস করা যায় না। নাগরিক সেবার অধিকাংশই স্থানীয় সরকারের অধীনে ফলে নির্বাচিত সরকারবিহিন সার্বভৌম রাষ্ট্রে খুব বেশী দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে না নাগরিকদের। দ্বিপাক্ষিক সমঝোতা চুক্তি, নির্বাচিত সরকারের অনুমোদন প্রয়োজন এমন সব উন্নয়ন প্রকল্প বাধাগ্রস্ত হচ্ছে তবে সাধারন নাগরিকেরা আসন্ন ডিসেম্বরে তৃতীয় নির্বাচনের সম্ভাবনায় শীতল প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছেন। দ্বি দলীয় রাজনৈতিক বাস্তবতায় মুদ্রার এ পিঠ ও পিঠ কয়েকবার দেখে সাধারণ মানুষ গত নির্বাচনে অপরিচিত দল ও মানুষদের ভোট দিয়েছে। আসন্ন নির্বাচনে তারা গতবারে যে দলকে ভোট দিয়েছেন সেই দলকে পুনরায় ভোট দিবেন কি না এই প্রশ্নে কিছুটা বিচলিত কারণ ব্যালট পেপারে তারা সে সময় কোন দলকে ভোট দিয়েছেন সেটা মনে রাখার কোনো প্রয়াস ভোটাররা করেন নি। নির্বাচিনকেন্দ্রীক গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় অনাস্থা কিংবা রাজনৈতিক দর্শণ হিসেবে আই হেট পলিটিক্স প্রজন্ম হয়তো দীর্ঘ দিন এই অবস্থায় টিকে থাকবে না, প্রতিবেশীদের চাপ, রাষ্ট্রের অর্থনৈতিক কর্মকান্ড পরিচালনার প্রয়োজনে তারা এক ধরণের বিকল্প সরকার ব্যবস্থার কথা ভাববে।

বিরাজনীতিকরণের ছোঁয়া কতদুর পৌঁছাতে পারে? ড্রাগ মাফিয়াদের আধিপত্য প্রতিষ্ঠার লড়াই, সংঘবদ্ধ অপরাধীদের প্রতিশোধ বাঞ্ছায় নির্বিচার খুনের ভূখন্ড মেক্সিকোর একটি অঞ্চলের জনসাধারণ নিজেরাই সংঘবদ্ধ হয়ে রাষ্ট্র-রাজনীতি থেকে নিজেদের বিচ্ছিন্ন করে ফেলেছে। রাজনৈতিক দলগুলো আন্তঃগোত্রীয় সংঘাত এবং বিচ্ছিন্নতা বাড়িয়ে দিচ্ছে এই অভিযোগে তারা নিজেদের গোত্রনিয়ন্ত্রিত ভূখন্ডে সকল রাজনৈতিক কর্মকান্ড নিষিদ্ধ ঘোষনা করেছে। মুনাফালোভী অপরাধী গোষ্ঠী এবং তাদের সহযোগী পুলিশ ও প্রশাসনকে তারা অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেছে। মেক্সিকোর আদালত তাদের এই দাবী মেনে নিয়েছে। গত ৫ বছরে সে অঞ্চলের মানুষের ভেতরে অপরাধপ্রবনতা কমেছে। স্থানীয় পঞ্চায়েত মদ খেয়ে হৈ হল্লা আর এলেমেলো গাড়ী চালানোর অভিযোগে গ্রেফতার করা অপরাধীদের বিচার করে অপরাধের পরিমাণ অনুমাণ করে বাধ্যতামূলক জনসেবা কর্মসূচিতে সম্পৃক্ত হতে বাধ্য করে অপরাধীদের। নাগরিক বন্ধন, পরস্পরের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ কিংবা এই সামাজিক ব্যবস্থায় নিজেদের অন্তর্ভুক্তি নিশ্চিত করতে অধিবাসীদের নিজেদের আচরণ সংশোধন করেছে। গত এক বছরে সেখানে কোনো ফৌজদারী অপরাধ ঘটে নি।

রাজনৈতিক ডামাডোলে ভীষণ প্রতিরোধে রাষ্ট্র ও প্রশাসন বিকল হয়ে যাওয়ার পর অপরাধের পরিমাণ কমে যায়। আমার ধারণা পুলিশ প্রশাসনবিহীন অঞ্চল অপরাধীর স্বর্গরাজ্য না বরং দুর্নীতিগ্রস্ত প্রশাসন অপরাধ ও অপরাধীদের পৃষ্টপোষক। শিল্পাঞ্চল কিংবা পৌরকেন্দ্রের বাইরে কোনো রাষ্ট্র আদতে নেই। রাজনৈতিক নেতা, ঠগ এবং অপরাধীরা পাশাপাশি বসবাস করে সেসব অঞ্চলে, এর বাইরে বিস্তৃর্ণ জনপদের মানুষেরা নিজেদের মতো থাকে। পৌরকেন্দ্রীক রাষ্ট্র নিজেদের কাঁচামাল এবং খাদ্যের জোগান খুঁজতে ভিন্ন ভিন্ন জনপদকে নিজেদের আওতাধীন ভূখন্ড মেনে নেয়। এই মেনে নেওয়ার বিনিময়ে নাগরিক পৌরকেন্দ্রের কাছ থেকে কতটুকু ফেরত পায়? পরিবর্তিত বিশ্ব যদি কসমোপলিটন, মেট্রোপলিটন এবং মিউনিসিপালিটিতে বিভক্ত হয়ে যায়, সম্ভবত মিউনিসিপালিটির নাগরিকেরা স্বাচ্ছন্দ্যে বসবাস করবে। যদি রাষ্ট্র-সার্বভৌমত্ব- সীমান্তের কাঁটাতার মানুষের ভেতরে কোনো দুরত্ব না রাখে এবং পৌরকেন্দ্রের গণমাধ্যম যদি ভাবনাকে উস্কে না দেয় পৌরকেন্দ্র থেকে দূরে বসবাসকারী সাধারণ মানুষেরা অপরাধ ও যুদ্ধবিহীন শান্তিপূর্ণ জীবনযাপন করবে।

পোস্টটি ৩ জন ব্লগার পছন্দ করেছেন

মন্তব্য করুন

(আপনার প্রদান কৃত তথ্য কখনোই প্রকাশ করা হবেনা অথবা অন্য কোন মাধ্যমে শেয়ার করা হবেনা।)
ইমোটিকন
:):D:bigsmile:;):p:O:|:(:~:((8):steve:J):glasses::party::love:
  • Web page addresses and e-mail addresses turn into links automatically.
  • Allowed HTML tags: <a> <em> <strong> <cite> <code> <ul> <ol> <li> <dl> <dt> <dd> <img> <b> <u> <i> <br /> <p> <blockquote>
  • Lines and paragraphs break automatically.
  • Textual smileys will be replaced with graphical ones.

পোস্ট সাজাতে বাড়তি সুবিধাদি - ফর্মেটিং অপশন।

CAPTCHA
This question is for testing whether you are a human visitor and to prevent automated spam submissions.